মানবতার সৈনিক ডাক্তার সৈয়দা তাসনীম কামালের জন্য দোয়া কামনা

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২০

মানবতার সৈনিক ডাক্তার সৈয়দা তাসনীম কামালের জন্য দোয়া কামনা

বেগম টুয়েন্টিফোর। বাংলাদেশের করোনা যুদ্ধে সাধারণ মানুষের সেবাদানের জন্য যেসব মানবিক করোনা যোদ্ধা ফ্রন্টলাইন ডাক্তার হিসেবে কাজ করছেন তাদের মধ্যে সিলেটের তরুণ ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা(ডিএমসি) ডাক্তার সৈয়দা তাসনীম কামাল নিতু। যে মানবিকতার ডাকে সাড়া দিয়ে ছোট দুই বাচ্চা, পেশাদার স্বামী, অসুস্থ্য বাবা মাকে ঘরে রেখে জাতির এই কঠিণ সময়ে মানবসেবায় নিজেকে বিলিয়ে দিচ্ছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় সৈয়দ তাসনীম কামাল নিতুর স্ট্যাটাসটি এখানে হুবহু দেয়া হলো-

৮ই মার্চ ২০২০ যেদিন থেকে বাংলাদেশে প্রথম করোনা সনাক্ত হল সেদিন থেকেই বুঝতে পেরেছিলাম ডাক্তার হিসেবে নিজ দ্বায়িত্ব পালনের জন্য ডাক আসবে।

এখন সময় হয়েছে নিজ দ্বায়িত্ব পালনের।

আমি চিকিৎসক। কিন্তু প্র্যাকটিসিং ক্লিনিশিয়ান নই। পেশাগত ভাবে বেশ কয়েক বৎসর আগে থেকে চিকিৎসক থেকে ভবিষ্যত ডাক্তারদের বুনিয়াদ গড়ে দেয়ার কারিগর হিসাবে রূপান্তরিত হয়েছি।
তাই যখন #ফ্রন্টলাইনার চিকিৎসক হিসেবে এই সংকটময় মূহুর্তে কাজ করার সময় এলো তখন মনের মধ্যে একাধারে ভয়, শংকা, দু:শ্চিন্তা বাসা বাধল।

দুএকবার ভেবেছি দ্বায়িত্বটুকু এড়িয়ে যাওয়া যায় কিনা। সে সুযোগ যে ছিলনা তাও কিন্তু নয়।

কিন্তু পারিনি এড়াতে।কারণ ঐ যে প্রথমেই বলেছি আমি চিকিৎসক। যেদিন থেকে মেডিকেলে পডার সুযোগ পেয়েছি সেদিন থেকেই জানি জানি মানুষকে চিকিৎসা দেয়াই আমার কাজ।

তাই এই ক্রান্তিকালে চিকিৎসক হিসেবে নিজ দ্বায়িত্ব পালনের জন্য পেছনে ফেলে এসেছি দুটো ছোট বাচ্চা, অসুস্হ মা-বাবা, বৃদ্ধ শ্বশুর-শ্বাশুড়ি, ভাই-বোন আর আমার বেচারা স্বামীপ্রবরকে ( আমার জন্য দুশ্চিন্তা আর দুই বাচ্চা রাখতে গিয়ে সে কাহিল)।
আমি দ্বায়িত্ব শেষে সুস্হভাবে ফিরে যেতে চাই আমার চেনা গন্ডিতে। আমার পরিবারের কাছে। আমার মাতৃস্নেহ বন্চিত বাচ্চাদের কাছে।
আমার জন্য দোয়া করবেন সবাই।

ডাক্তার সৈয়দা তাসনীম কামাল সিলেটের বিখ্যাত সমাজসেবী, শিক্ষানুরাগী সৈয়দ শাহ কামাল চৌধুরীর মেয়ে, আদি নিবাস সৈয়দপুর চৌধুরী বাড়ি।

ডাক্তার সৈয়দা তাসনীম কামাল নিতু দায়িত্ব সুচারুভাবে সম্পন্ন করে নিজ পরিবারের কাছে যথাযথভাবে সুস্থ্য ও নিরাপদ ও করোনামুক্তভাবে ফিরে যান-আল্লাহপাকের দরবারে সকল ডাক্তারের জন্য এই দোয়াই করি। আমিন।